কক্সবাজারের উখিয়া থেকে ভাসানচরের উদ্দেশে সাতটি বাসে আরো ২৫৭ জন রোহিঙ্গা রওনা দিয়েছেন। বুধবার বেলা ১১টার দিকে উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ থেকে রোহিঙ্গাদের নিয়ে ভাসানচরের উদ্দেশে বাস ছেড়ে গেছে।

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার বিকেল থেকে অন্তত দেড় হাজার থেকে দুই হাজার রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুদের উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠে জমায়েত করা হয়। এটি হচ্ছে সপ্তম দফায় ভাসানচরে যাওয়ার প্রক্রিয়া।

এ বিষয়ে দায়িত্বশীল সংস্থা সাংবাদিকদের কোনো ধরনের তথ্য না দিলেও স্থানীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছে, এবার উখিয়াসহ বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে স্বেচ্ছায় ভাসানচর যেতে রাজি হওয়া দেড় হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে তালিকা অনুযায়ী স্থানান্তর করা হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার বেলা ১১টার দিকে উখিয়া থেকে ভাসানচরের উদ্দেশে সাতটি বাসে করে ২৫৭ জন রোহিঙ্গা রওনা দিয়েছেন। এসব রোহিঙ্গাদের দায়িত্বে দুটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়ি ও একটি অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে। চট্টগ্রামে পৌঁছে বৃহস্পতিবার সেখান থেকে নৌ-বাহিনীর বিশেষ জাহাজে করে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে ‘আরআরআরসি’ কার্যালয় থেকে জানা গেছে, সপ্তম দফায় ১ হাজার ৮০০ থেকে ২ হাজার রোহিঙ্গা ভাসানচরে স্থানান্তরের কথা রয়েছে। এর আগে ২০২০ সালের ৪ ডিসেম্বর প্রথম দফায় এক হাজার ৬৪২ জন, ২৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দফায় এক হাজার ৮০৪ জন, চলতি বছরের ২৯ ও ৩০ জানুয়ারি তৃতীয় দফায় তিন হাজার ২৪২ জন, ১৪ ও ১৫ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ দফায় তিন হাজার ১৮ জন এবং পঞ্চম দফায় ৩ ও ৪ মার্চ চার হাজার ২১ জন, ষষ্ঠ দফায় ১ ও ২ এপ্রিল ৪ হাজার ৩৭২ জন রোহিঙ্গাকে ভাসানচর স্থানান্তর করা হয়।

এছাড়া, গত বছর মে মাসে সাগর পথে অবৈধভাবে মালয়াশিয়া যাওয়ার চেষ্টা করা ৩০৬ রোহিঙ্গাকে সমুদ্র থেকে উদ্ধার করে ভাসানচরে রাখা হয়।