ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভার দ্বিতীয় দফার নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে সকালে। আজকের নির্বাচনে মূল আকর্ষণ নন্দীগ্রাম।  

এই আসন থেকে ভোট করছেন মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  অথচ মমতার নন্দীগ্রামে অন্তত ৮০ ভোটকেন্দ্রে তৃণমূলের এজেন্ট দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।  

বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দফার ভোটগ্রহণের শুরুতেই তৃণমূলের তরফে বিজেপির বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করা হয়। অবশ্য ভোট শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পর কয়েকটি কেন্দ্রে এজেন্ট দেয় তৃণমূল। 

হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার নন্দীগ্রামের বয়াল ও গোকুলনগরের বিস্তীর্ণ এলাকায় অন্তত ৮০টি বুথে এজেন্ট দিতে পারেনি তৃণমূল।  এরপর দলীয় নেতারা তৎপর হয়ে বেশ কিছু বুথে এজেন্টের ব্যবস্থা করলেও কিছু বুথে এখনও নেই তৃণমূলের এজেন্ট। 

এ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ১০০টার মতো বুথে ওরা এজেন্ট দিতে পারেনি।

কেন তৃণমূল এজেন্ট দিতে পারল না? জবাবে শুভেন্দু বলেন, আমি তৃণমূলের ঠেকা নিয়ে বসে আছি নাকি?

এদিন ভোট শুরু হতেই নন্দীগ্রামের পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।  কোথাও বোমাবাজি, কোথাও আবার বুথের পাশে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। 

অন্যদিকে নন্দীগ্রামের বয়ালে ভোটারদের বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে।  তৃণমূলের অভিযোগ, কয়েকটি বুথে ভোটারদের ভোটদানে বাধা দিচ্ছেন বিজেপির কর্মীরা।

যে কোনো রকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে গোটা নন্দীগ্রামকে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার বলয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছে।  জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা।