‘ম্যাডাম ফুলি’ খ্যাত অভিনেত্রী শিমলা। তাকে নিয়ে রুবেল আনুশ নির্মাণ করেছেন ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’ নামে চলচ্চিত্র। বাস্তব জীবনের গল্প নিয়ে নির্মিত হচ্ছে এটি।

বেশ আগে সিনেমাটির শুটিং শেষ হলেও অর্থ সংকটের কারণে সম্পাদনার কাজ বাকি ছিল। যার জন্য এখনো আলোর মুখ দেখেনি সিনেমাটি। দীর্ঘদিন পর আগামী মাস থেকে সিনেমাটির বাকি অংশের কাজ শুরু করতে যাচ্ছেন পরিচালক।

রুবেল আনুশ বলেন, সিনেমাটির জন্য আমার অনেক ঋণ করতে হয়েছে। একটি ওয়েব সিরিজের জন্য একজন প্রযোজক পেয়েছি। ওয়েব সিরিজ নির্মাণ করে কোনো পারিশ্রমিক নেব না। আর ওই পারিশ্রমিক দিয়ে এই সিনেমার বাকি অংশের কাজ শেষ করব।

২০১৪ সালের আগস্ট মাসে এ সিনেমার শুটিং শুরু করেন নির্মাতা। এই সিনেমায় অসম প্রেমের গল্প ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। যার কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন শিমলা ও ‘ঘেটুপুত্র’ সিনেমা খ্যাত অভিনেতা মামুন। শুরুটা বেশ ভালোই ছিল। কিন্তু কিছুদিন যেতেই বাধা হয়ে দাঁড়ায় কিছু অসাধু লোকের অনৈতিক লালসা ও অর্থ।

রুবেল আনুশ বলেন, আমি আসলে প্রযোজক মেইনটেইন করতে পারি না। প্রযোজকদের তেলাতে পারি না। প্রথমে একজন প্রযোজক নিয়ে সিনেমাটির কাজ শুরু করি। কিছুদিন যেতেই প্রযোজক অনৈতিক কার্যক্রমের প্রস্তাব দেন। আমি এতে আপত্তি জানালে তিনি সিনেমা থেকে সরে দাঁড়ান। এর পরে নিজেই সিনেমাটি প্রযোজনা শুরু করি। এক পর্যায়ে আমার বাবার সম্পত্তি বিক্রি করে এর শুটিং করি। এতেও কাজ শেষ করতে পারিনি। এই সিনেমাকে কেন্দ্র করে আমার বাবা-মায়ের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট হয়। এক পার্যায়ে টাকা ধার করে সিনেমাটির বাকি অংশের শুটিং শেষ করি।

সিনেমাটির শুটিং শেষ হয়েছে প্রায় দুই বছর আগে। সিনেমাটির সম্পাদনা ও মুক্তির জন্য কিছু টাকা প্রয়োজন ছিল, যা জোগান দিতে এতদিন ব্যর্থ হচ্ছিলেন রুবেল।

‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’ সিনেমার নাম পরিবর্তন করে রাখা হয়েছে ‘প্রেম কাহন’। শিমলা-মামুন ছাড়াও বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আবুল হায়াত, রুমাই নোভিয়া, পুলক, বাপ্পী, লাবণী, সাদিয়া, আলিফ, মুসা, টুটুল চৌধুরী, আফরিন প্রমুখ।