আফগান নাগরিকদের বহনকারী একটি ফ্লাইট বুধবার ভোরে উগান্ডায় অবতরণ করেছে। কর্মকর্তারা বলছেন, তাদের ওই দেশে অস্থায়ী আশ্রয় দেওয়া হবে।

উগান্ডার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে ভয়েস অব আমেরিকা জানায়, পুরুষ, নারী ও শিশুসহ ৫১ জন আফগানকে নিয়ে একটি চার্টার ফ্লাইট এন্টিবের লেকসাইড শহরে অবতরণ করে। এরপর বাসে করে তাদের হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান থেকে আরও অনেক উদ্ধারকৃতদের পরবর্তী সময়ে উগান্ডায় নিয়ে যাওয়া হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ আফগান নাগরিক, অন্যান্য যারা যুক্তরাষ্ট্র ও বিশ্বব্যাপী অন্যান্য গন্তব্যে যাওয়ার চেষ্টা করছে তাদের সাময়িকভাবে আবাসন দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছে যুক্তরাষ্ট্র সরকার, যা উগান্ডা সরকার অনুসরণ করছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, শরণার্থী ও বিপদে পড়া ব্যক্তিদের গ্রহণের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক উদ্বেগের বিষয়ে একটি দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করার উগান্ডা সরকারের নীতি অভাবগ্রস্তদের জন্য আয়োজন করার সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করেছে।

কামপালায় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস উগান্ডাকে ‘এই উদারতা ও আতিথেয়তার’ জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছে।

উগান্ডা ২ হাজার শরণার্থীকে নিতে রাজি হয়েছে শোনা গেলেও বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়নি।

জাতিসংঘের মতে, প্রধানত প্রতিবেশী দক্ষিণ সুদান ও গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গো থেকে প্রায় ১৫ লাখ শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়েছে।

এ দিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগ বুধবার জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৯ হাজার আমেরিকান এবং স্বদেশ থেকে ছেড়ে যেতে আগ্রহী আফগানদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তালেবান বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত দেশ থেকে পালানোর আশায় কাবুলের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আরও ১০ হাজার মানুষ ভিড় করেছে।

গতকাল কাবুল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের মোট ৯০টি সামরিক ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ছেড়েছে, প্রতি ৩৯ মিনিটে একটি করে। সব মিলিয়ে কয়েক সপ্তাহ আগে উদ্ধার তৎপরতা শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ৮৮ হাজার মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।